ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করব? (Freelancing In Bangla 2021)

হ্যালো বন্ধুরা আপনারা কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন তো বন্ধুরা ইন্টারনেট থেকে অনলাইন টাকা আয় করার বিভিন্ন মাধ্যম আমি আপনাদের আগেই বিভিন্ন আর্টিকেল এর মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছি আজ আমি আরেকটি নতুন অনলাইন টাকা আয় করার বিষয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করব এই বিষয়টি হলো ফ্রিল্যান্সিং

ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করব? (Freelancing In Bangla 2021)

বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং করে অনেকেই ঘরে বসে হাজার হাজার টাকা আয় করছেন এবং অনেকে এমন আছেন যারা ফ্রিল্যান্সিং করে এত টাকা আয় করছেন যে তাদের আর কোন ফুল টাইম চাকরি করার প্রয়োজন হচ্ছে না বা এটা বলতে পারেন ফুলটাইম কোন চাকরি করে তারা এত টাকা ইনকাম করতে পারতেন না

যদি আপনারাও ফ্রিল্যান্সার হতে চান আর ঘরে বসে টাকা আয় করার পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাদের জন্য সব থেকে সেরা প্রমাণিত হবে কারণ এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের বলব ফ্রিল্যান্সার হয়ে অনলাইন টাকা কিভাবে আয় করবেন? 

আমাদের দেশের প্রায় 68 শতাংশ মানুষেরা বেকার আর যারা চাকরি করছেন তাদের মধ্যে অনেকেই চান নিজেদের ব্যবসা শুরু করতে কারণ সকাল ন’টা থেকে সন্ধ্যে পাঁচটা পর্যন্ত অফিসে কাজ করতে আর মালিকের গঞ্জনা শুনতে কারোরই ভালো লাগেনা

এই সমস্যাটির সমাধান হলো ফ্রিল্যান্সিং আপনারা ফ্রিল্যান্সিং করে ঘরে বসে অনলাইনে টাকা আয় করতে পারবেন এবার আপনারা হয়তো ভাবছেন ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে করবেন? ফ্রিল্যান্সার কিভাবে হবেন? তাহলে চলুন এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে জেনে নেওয়া যাক

 

ফ্রিল্যান্সিং কি? (Freelancing In Bangla)

ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করব? (Freelancing In Bangla 2021)

সহজ ভাবে বললে ফ্রিল্যান্সিং এমন একটি মাধ্যম যে মাধ্যমে আপনারা অনলাইনে কাজ করে টাকা আয় করতে পারবেন এমনিতেই যেকোনো চাকরি করা ব্যাক্তিদের সকাল 10 টা থেকে বিকেল ছটা অবদি অফিসে গিয়ে কাজ করতে হয়

কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে কাজ করে মানুষেরা স্বনির্ভর থাকে সুতরাং ফ্রিল্যান্সিং এর অর্থ হল স্বাধীনভাবে কাজ করা এছাড়া এটিকে এক ধরনের ব্যবসা বললেও ভুল হবে না

এই প্রক্রিয়াটি এর মাধ্যমে মানুষেরা অনলাইনে বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে কাজ খুঁজে নিয়ে নিজেদের ইচ্ছেমতো কাজ করতে পারে এইভাবে যারা স্বাধীনভাবে Freelancing এর কাজ করে তাদের ফ্রিল্যান্সার বলা হয়

বর্তমানে ইন্টারনেট, সোশ্যাল মিডিয়া, এবং বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোর মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সাররা বিভিন্ন ধরনের কাজ প্রজেক্ট বাস সার্ভিস খুঁজে নিয়ে সেগুলো তারা তাদের ক্লায়েন্টদের জন্য নির্ধারিত সময়ে পূরণ করে দিচ্ছেন এই কাজ বা প্রজেক্ট পূরণ করার বিনিময়ে তারা ক্লায়েন্টের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছেন

আপনারা অবশ্যই যে প্রজেক্ট বা কাজ করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন তার জন্য আপনারা কত টাকা নেবেন সেটা আপনারা আগেই ক্লায়েন্টদের সাথে কথা বলে ঠিক করে নিতে পারেন এবং সঠিক সময়ে সঠিকভাবে কাজ শেষ হয়ে যাবার পর আপনাদের টাকা দিয়ে দেওয়া হয়

এই ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ আপনারা আপনাদের সময় মতো করতে পারবেন আপনারা কতটা সময় কাজ করতে চান কতটুকু কাজ করতে চান এবং এই  কাজ আপনারা ফুলটাইম বা পার্ট টাইম করবেন এই সমস্ত কিছু আপনারা নিজেরাই ঠিক করতে পারবেন

এছাড়া ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে নেওয়া কাজগুলো করার জন্য আপনাদের কোনো বিশেষ জায়গার প্রয়োজন হবে না কারণ বেশিরভাগ কাজ করার জন্য আপনাদের শুধুমাত্র একটি ল্যাপটপ বা কম্পিউটার এবং সেই ল্যাপটপ বা কম্পিউটারে ইন্টারনেট কানেকশন এর প্রয়োজন হবে

এইজন্য আপনারা আপনাদের সমস্ত কাজ ঘরে বসেই করতে পারবেন

এছাড়া ফ্রিল্যান্সিংকে আপনারা একটি ব্যবসা হিসেবেও করতে পারেন

সহজ ভাষায় ফ্রিল্যান্সিং কি বা কাকে বলে?

Freelancing এর অর্থ হলো আপনার যেকোন দক্ষতার বিনিময় অর্থ উপার্জন করা সহজ ভাষায় বললে আপনারা যখন কোনো তৃতীয় ব্যক্তির জন্য কাজ করেন আর সেই কাজ করার বদলে টাকা নেন তখন সেটি ফ্রিল্যান্সিং এর অন্তর্গত এই কাজ আপনারা অনলাইন বা অফলাইন দুটি মাধ্যমে করতে পারেন

কারণ বর্তমানে সমস্ত জিনিস অনলাইন হয়ে গিয়েছে আর এখানে অনেক ভালো ভবিষ্যৎ রয়েছে এই জন্য আমরা অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং এর সম্বন্ধে কথা বলব এই কাজ করার জন্য আপনাদের যেকোনো একটি  কাজে প্রফেশনাল হওয়া খুবই জরুরী চলুন একটি উদাহরনের মাধ্যমে বুঝে নেওয়া যাক ধরে নিন আপনারা ওয়েব ডিজাইনিং জানেন আর আপনারা আগে কোন কোম্পানিতে ওয়েব ডিজাইনারের কাজ করেছেন যদি কেউ আপনাকে বলে তার সাইটটি ডিজাইন করে দিতে পারবেন? তখন আপনারা হ্যাঁ বলে দেন

আপনি অফিসের পরে তার সাইটটি ডিজাইন করেন আর কাজ পূরণ হবার পর সে আপনাকে পারিশ্রমিক দেবে তাই কাজ করার এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটিকে ফ্রিল্যান্সিং বলা হয় আর যে সমস্ত মানুষেরা ফ্রিল্যান্সিং করেন তাদের ফ্রিল্যান্সার বলা হয়

ফ্রিল্যান্সিংয়ে আপনাকে কোন নির্দিষ্ট কোম্পানির জন্য কাজ করতে হয় না আপনি আপনার ক্লায়েন্ট নিজেরাই খুঁজে নিতে পারবেন আর তাদের কাজ করে দিতে পারবেন একজন ক্লায়েন্টের কাজ সম্পূর্ণ হবার পর আপনারা অন্য ক্লায়েন্টের কাজ পূরণ করেন আর এই প্রক্রিয়াটি চলতেই থাকবে তাই ফ্রিল্যান্সিং একটি Skill Based Job এখানে প্রতিটি ব্যক্তি তার দক্ষতা অনুসারে টাকা আয় করতে পারে প্রতিটি ব্যক্তির দক্ষতা আলাদা আলাদা হতে পারে

 

ফ্রিল্যান্সিং মানুষেরা কেন করেন বা আপনার কেন করা উচিত?

এটি একটি খুবই সাধারণ প্রশ্ন এটি শুরুর দিকে প্রতিটি মানুষের মনে আছে আসলে মানুষেরা ফ্রিল্যান্সিং কেন করে? এই প্রশ্নের উত্তরটি খুবই সহজ কারণ এই কাজটি করার জন্য বেশি সময়ের প্রয়োজন হয় না অর্থাৎ এক সপ্তাহ লাগে কোন প্রজেক্ট কে সম্পূর্ণ করতে আর আপনি যার কাছ থেকে কাজটি নিয়েছেন তাকে কাজটি সম্পূর্ণ করে পাঠিয়ে দেওয়ার পরে আপনারা কাজটি করার জন্য টাকা পেয়ে যাবেন টাকা আয় করার জন্য এই কাজটি খুবই সহজ মাধ্যম

এবার সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন টি হল আপনাদের ফ্রিল্যান্সিং কেন করা উচিত? সর্বপ্রথম টাকা আয় করার জন্য কারণ এই কাজটি করে আপনারা ভাল টাকা আয় করতে পারবেন আর টাকার প্রয়োজন প্রত্যেকেরই রয়েছে আর সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ কারণটি হলো Professionalism অর্থাৎ যেকোনো একটি কাজে শ্রেষ্ঠ হয়ে যাওয়া

প্রফেশনাল মানুষ তখনই হয় যখন কোন কাজ করার জন্য মানুষেরা বিভিন্ন মাধ্যম ভেবে নাই যেটা আপনারা ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবেন কারণ এখানে আপনারা যত বেশি কাজ করবেন তত বেশি আপনারা টাকা আয় করতে পারবেন আর যখন আপনারা কোন কাজ বারবার করবেন তখন সেই কাজে আপনার মধ্যে একটি কনফিডেন্স চলে আসবে জেটি প্রফেশনাল হবার জন্য সব থেকে জরুরি

 

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব?

আমি আপনাদের আগেই বলেছি আপনারা এই কাজটি অনলাইন আর অফলাইন দুটি মাধ্যমেই করতে পারবেন কিন্তু আজ আমি আপনাদের শুধুমাত্র অনলাইন পদ্ধতি সম্পর্কে বলব অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য কিছু ওয়েব সাইট আছে যেখানে আপনাদের অ্যাকাউন্ট বানাতে হবে আর আপনার প্রফেশন এর সম্বন্ধে সম্পূর্ণ তথ্য প্রদান করতে হবে

এছাড়া এই মাধ্যমে টাকা আয় করার জন্য আপনাদের নতুন নতুন কাজ বা প্রজেক্ট এর প্রয়োজন হবে

এর জন্য আপনাদেরকে আপনাদের কাজ বা দক্ষতার বিষয়ে প্রচার বা মার্কেটিং করতে হবে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম গুলিতে যেমন সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট, সোশ্যাল মিডিয়া গ্রুপ, ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস আরো বিভিন্ন জায়গায়

আপনাদের দক্ষতার প্রচার বা মার্কেটিং যত বেশি করবেন ততো বেশি মানুষেরা জানতে পারবে যে আপনারা কোন কাজে বিশেষজ্ঞ বা এক্সপার্ট এবং আপনি তাদের জন্য কোন কাজটি করতে পারবেন

এর ফলে ভবিষ্যতে আপনার দক্ষতার সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রজেক্ট বা কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক গুন বেড়ে যায় অনলাইনে

উদাহরণস্বরূপ ধরুন আপনারা ব্লগিং, SEO বা ওয়েবসাইট তৈরি করতে এক্সপার্ট এই ক্ষেত্রে যদি আপনারা আপনাদের দক্ষতা সম্পর্কে অন্যদের না জানান তাহলে তারা কখনোই জানতে পারবে না যে আপনারা তাদের জন্য SEO বা ওয়েব সাইট সম্পর্কিত কাজ করে দিতে পারবেন তাই ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যারিয়ার শুরু করার জন্য আপনাদের কাজের অভিজ্ঞতা বা দক্ষতা সম্পর্কে অনলাইনে মার্কেটিং বা প্রচার করাটা খুবই জরুরী

একটি কথা অবশ্যই মনে রাখবেন অনলাইনের মাধ্যমে যখন কোন মানুষ আপনাকে কোনো কাজ বা প্রজেক্ট দেবে তখন তারা আপনার উপর ভরসা করেই সেই কাজটি দেবে

তাই আপনাদের ভালো কাজ, কাজের অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতা এগুলো হবে আপনাদের ব্র্যান্ড বা আপনাদের পরিচয় যদি আপনারা ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার একটি ভালো ব্র্যান্ড বা নাম তৈরি করে নিতে পারেন তাহলে অধিক সংখ্যক মানুষ এরা সহজেই আপনার উপর ভরসা করে আপনাকে প্রজেক্ট বা কাজ দেবে

 

Tips For Freelancing

Intro:- আপনার এবং আপনার কাজ সম্পর্কে ভালোভাবে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করুন যেমন আপনি কোথায় বাস করেন, আপনি এই কাজটি কতদিন ধরে করছেন আর আপনি কিভাবে শিখেছেন বা আপনি এখনো পর্যন্ত কতগুলো কাজ করেছেন ইত্যাদি

Photo:- Photo identity এর মত কাজ করে যাতে সামনের ব্যক্তিটি জানতে পারে তার কাজটি কে করছে আর সে এক ধরনের বিশ্বাস করতে পারবে

Amount:- যে কোনো কাজ বা পেশার মধ্যে বিভিন্ন পার্থক্য রয়েছে যেমন কিছু কাজ ছোট হয় আর কিছু কাজ বড় হয় এই জন্য আপনাদের একটি লিস্ট বানিয়ে সেখানে rate লিখে দিতে হবে যাতে সামনের মানুষটি বুঝতে পারে যে তারা যে কাজটি পরাতে চাইছে তার জন্য তাদের কত টাকা দিতে হবে 

Time Limitation:- যেকোনো কাজ ভালোভাবে করার জন্য time table খুবই গুরুত্বপূর্ণ যাতে আপনি আপনার কাজে সময় দিতে পারেন আর আপনার কাজটি সঠিক সময়ে পূরণ করতে পারেন

 

6 টি ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট ঘরে বসে কাজ করার জন্য 

সাধারণত ইন্টারনেটে হাজারো ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট উপলব্ধ রয়েছে কিন্তু আজ আমি আপনাদের এমন কিছু ওয়েবসাইটের সম্বন্ধে বলব যেগুলো সব থেকে বেশি ব্যবহার করা হয়

Upwork: ফ্রিল্যান্সিং এর সব থেকে জনপ্রিয় ওয়েবসাইট হল Upwork কারণ এই ওয়েবসাইটে আপনারা সব ধরনের কাজ পেয়ে যান যেগুলো আমি আপনাদের উপরে বলে দিয়েছি এর সাথে এটি একটি খুবই বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট এখানে প্রায় 12 মিলিয়নের বেশি ফ্রিল্যান্সাররা কাজ করছে এখানে প্রায় 3 মিলিয়নের বেশি কাজ পোস্ট করা হয় প্রতিবছর এটি ভারতের সবথেকে বেশি ব্যবহার করা হয়

Freelancer: ফ্রিল্যান্সিং দুনিয়ার সবথেকে জনপ্রিয় ওয়েবসাইট হল Freelancer কারণ এটি সবথেকে বেশি ব্যবহার করা হয় আর এখানে আপনারা প্রায় সমস্ত ধরনের কাজ পেয়ে যাবেন এখানে আপনারা মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন সম্বন্ধিত সবথেকে বেশি কাজ পাবেন তাই যদি আপনারা একজন অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপার হয়ে থাকেন তাহলে এই ওয়েবসাইটটি আপনাদের জন্য খুবই লাভদায়ক হবে এখানে 1350 টি বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে মানুষেরা কাজ করছেন তাদের মধ্যে কিছু হল – একাউন্টিং, ফাইন্যান্স, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ফটোগ্রাফি, SEO, ওয়েব ডিজাইন ইত্যাদি আরো বিভিন্ন বিষয়ে কাজ পেয়ে যাবেন

Fiverr: Fiverr একটি খুবই জনপ্রিয় ওয়েবসাইট কিন্তু এখানে কোন কাজ করার জন্য bid করার প্রয়োজন হয় না এখানে আপনারা 5 ডলার থেকে কাজ পেয়ে যাবেন এখানে প্রচুর কম্পিটিশন রয়েছে তাই আপনাদের এখানে আপনার gig কে খুবই ভালভাবে বানাতে হবে যাতে মানুষেরা আপনাদের কাজ দেয় গ্রাফিক্স ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, কনটেন্ট রাইটিং, প্রোগ্রামিং ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে আপনারা কাজ পেয়ে যাবেন 

99Designs: এই ওয়েবসাইট দিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের জন্য সবথেকে ভালো কারণ এই ওয়েবসাইটে গ্রাফিক সম্বন্ধিত আপনারা অনেক কাজ পেয়ে যাবেন এইজন্য যদি আপনারা একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হয়ে থাকেন তাহলে এই ওয়েবসাইটটি আপনাদের জন্য সব থেকে সেরা ওয়েবসাইট হবে

Content Mart: এই ওয়েবসাইটটি কনটেন্ট ক্রিকেটারদের জন্য সবথেকে ভালো যদি আপনারা কন্টাক্ট রাইটিং করতে চান তাহলে Content Mart ওয়েব সাইটটি আপনাদের জন্য সব থেকে সেরা কারণ এই ওয়েবসাইটে আপনারা আপনাদের টপিক সম্বন্ধিত কনটেন্ট লেখার সুযোগ পেয়ে যাবেন আর সাথে ভালো টাকা আয় করতে পারবেন

Guru: বর্তমানে এই ওয়েবসাইটটিতে 30 লক্ষ এর বেশি মানুষেরা জড়িত এবং এখনও পর্যন্ত প্রায় 10 লক্ষ কাজ এখানে সম্পূর্ণ করা হয়েছে এখানে আপনারা বিভিন্ন বিষয়ে কাজ খুঁজে নিতে পারবেন আপনারা আপনাদের একটি প্রোফাইল বানিয়ে সেখানে আপনাদের অভিজ্ঞতা দক্ষতা এবং জ্ঞান সম্বন্ধে সম্পূর্ণ বিবরণ দিন এরপর মানুষেরা আপনার প্রোফাইল এবং কাজের সম্বন্ধে দেখে তাদের প্রয়োজন হিসেবে আপনাদেরকে কাজ দেবে

যদি আপনারা আপনাদের ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করার কথা ভেবেছেন বা ভাবছেন তাহলে আপনারা উপরের দেওয়া ওয়েবসাইটগুলোতে ভিজিট করে প্রোফাইল বানিয়ে কাজ শুরু করতে পারেন

 

এই ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোতে গিয়ে কি করবেন?

এই ওয়েবসাইটগুলোতে গিয়ে আপনাদেরকে আপনার প্রোফাইল বা একাউন্ট বানাতে হবে আপনারা আপনাদের অ্যাকাউন্ট বানিয়ে আপনাদের নিজেদের প্রোফাইলে আপনাদের কাজের অভিজ্ঞতা, আপনাদের সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল, আপনাদের পড়াশুনা, আপনাদের প্রোফাইল পিকচার, আপনাদের দক্ষতা বা স্কিল এই সমস্ত বিষয়ে বিস্তারিত ভাবে লিখতে হবে

আপনাদের প্রোফাইলে এটাও লিখতে হবে যে আপনারা আপনাদের ক্লায়েন্টদের জন্য কিভাবে এবং কি কি কাজ করবেন এছাড়া তারা তাদের নিজেদের কাজের জন্য আপনাকে কেন বেছে নিবে এই বিষয়ে একটি ছোট্ট বিবরণ লিখতে হবে

বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটগুলোতে যেখানে আপনারা কাজ করতে চান সেখানে উপরের বলা আমার কথা গুলির মত প্রোফাইল বানিয়ে ঠিক সেইভাবে ডিটেলস গুলো লিখুন

এর ফলে যে সমস্ত ক্লায়েন্টরা তাদের নিজেদের কাজ করাতে চান তারা আপনার এবং আপনার কাজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে খুব সহজেই জেনে নিতে পারবে এর ফলে এই সাইট গুলো থেকে আপনাদের কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যায়

যত বেশি আপনারা কাজ পাবেন তত বেশি আপনারা টাকা আয় করার সুযোগ পাবেন

আপনাদেরকে যে সমস্ত কাজ দেওয়া হবে সেগুলো যদি আপনারা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আপনাদের ক্লায়েন্টদের করে জমা দিয়ে দিতে পারেন তাহলে আপনাদেরকে সেই কাজটির জন্য যত টাকা দেওয়ার কথা হয়েছিল সেই টাকা আপনাদের কে দিয়ে দেওয়া হবে

এইভাবে আপনারা ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে অনলাইনে আপনাদের ইন্টারেস্ট অভিজ্ঞতাবাদ দক্ষতার সম্পর্কিত কাজগুলো করে ঘরে বসে টাকা আয় করতে পারবেন

 

ফ্রিল্যান্সিং করে কত টাকা আয় করা যাবে?

ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা আয় করার কোন রকম সীমাবদ্ধতা নেই এটাকে আপনারা এক ধরনের ব্যবসা ও বলতে পারেন এখান থেকে যত বেশি কাজ আপনাদের কাছে আসবে আর যত বেশি কাজ করে দিতে পারবেন আপনারা ততো বেশি ইনকাম করতে পারবেন

PayPal এর একটি সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে প্রায় 23 শতাংশ ভারতীয় ফ্রিল্যান্সাররা প্রতিবছর 60 লক্ষ টাকা আয় করছেন আর বাকি 23% মানুষেরা আড়াই লক্ষ থেকে 5 লক্ষ টাকার ভিতরে আয় করছেন আর বাকি 54% ফ্রিল্যান্সাররা আড়াই লক্ষ টাকার থেকেও কম টাকা আয় করছেন প্রতিবছর

সহজ ভাবে বললে যদি আপনারা ফ্রিল্যান্সিংয়ের ক্যারিয়ার বানানোর কথা ভাবছেন তাহলে এই কেরিয়ার বানালে আপনাদের অনেক লাভ রয়েছে এবং এটি থেকে আপনারা লক্ষ লক্ষ টাকা ঘরে বসেই আয় করতে পারবেন কিন্তু আপনারা কত টাকা আয় করবেন এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে কতজন মানুষেরা ভরসা করে আপনাকে কাজ দিচ্ছে এবং কত কাজ আপনারা সম্পূর্ণ করতে পারছেন এটির ওপর নির্ভর করে

বর্তমানে অনলাইন এবং ইন্টারনেটের জগতে ফ্রিল্যান্সিংয়ের অনেক চাহিদা রয়েছে লক্ষ লক্ষ মানুষের যেকোনো ছোট ছোট কাজ করার জন্য একজন কর্মচারী রেখে তাকে প্রতি মাসে টাকা দেওয়ার থেকে একজন ফ্রিল্যান্সারকে দিয়ে সেই কাজটা অনেক কম টাকায় করিয়ে নিচ্ছেন

আপনাদের কোন কাজে যত বেশি অভিজ্ঞতা থাকবে ততবেশি টাকা আপনার প্রতিটি কাজের জন্য চার্জ করতে পারবেন

 

কোন কোন ফ্রিল্যান্সিং কোর্স শিখতে হবে?

সহজ ভাবে বললে ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য বা শেখার জন্য আপনাদের কোন কোর্স করার প্রয়োজন হবে না

কিন্তু কিছু সাধারণ জ্ঞান যেমন কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবেন, কোন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কাজ খুঁজবেন এবং সর্বপ্রথম আপনাদের কি কি করতে হবে এইসব ব্যাপারে আপনাদের ভালোভাবে জেনে নিতে হবে এই সমস্ত বিষয়ে আমি আপনাদের উপরে বলে দিয়েছি

ফ্রিল্যান্সিং কোর্স বলতে সেরকম কিছু নেই কিন্তু যদি আপনারা চান তাহলে আপনারা ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ করার জন্য কিছু বিশেষ কোর্স করতে পারেন যেগুলো শেখার পর আপনারা ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ ভালোভাবে করতে পারবেন যেমন

  • Graphic Design:- বর্তমানে মার্কেটিং, লোগো বানানো এবং বিভিন্ন ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজে গ্রাফিক ডিজাইনারদের প্রয়োজন হয় তাই এই কোর্সটি আপনাদের জন্য খুবই লাভ দায়ক হবে
  • Website বানানো:- আশাকরি আপনাদের এই বিষয়ে কোন কিছু না বললেও চলবে কারন বর্তমানে ওয়েবসাইট বানানো কতটা গুরুত্বপূর্ণ এই বিষয়ে আমরা সবাই জানি
  • Content Writing:- যদি আপনাদের লিখতে ভালো লাগে বা লেখার বিষয়ে আপনাদের দক্ষতা রয়েছে তাহলে আপনাদের জন্য এটি খুবই লাভ দায়ক আর যদি আপনাদের এই বিষয়ে অভিজ্ঞতা না থেকে থাকে তাহলে আপনারা আর্টিকেল লেখার উপরে একটি কোর্স করে ভালোভাবে এই বিষয়ে শিখতে পারেন যদি আপনারা এই কোর্সটি ভালোভাবে শিখিয়ে নিতে পারেন তাহলে আপনারা বিভিন্ন ব্লগ বা যে কোন কোম্পানির ওয়েব সাইটের জন্য লিখতে পারবেন
  • Video Editing:- বর্তমানে বিভিন্ন কোম্পানি অনলাইন মার্কেটাররা তাদের নিজেদের ব্র্যান্ডের জন্য ভিডিও এডিটিং করান ভাই যদি আপনারা এই বিষয়ে কোন কোর্স করে থাকেন তাহলে আপনারা ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে এই বিষয়ে অনেক কাজ পেয়ে যাবেন
  • Coding:- বর্তমানে web-development বা এপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট এর কাজের জন্য বিভিন্ন ধরনের কোডিং ল্যাঙ্গুয়েজ এর প্রয়োজন হয় এই ক্ষেত্রে যদি আপনাদের মধ্যে কোন বিশেষ কোডিং ল্যাঙ্গুয়েজ এর জ্ঞান বা দক্ষতা থেকে থাকে তাহলে আপনারা এই বিষয় সম্বন্ধিত বিভিন্ন কাজ পেয়ে যাবেন

এগুলো ছাড়াও আরো বিভিন্ন কোর্স রয়েছে যে কোর্সগুলো করে আপনারা নিজেদেরকে একজন এক্সপার্ট বানিয়ে এই ফ্রিল্যান্সিং এর জগতে আসতে পারবেন

আমার শেষ কথা

যদি আপনারা পার্টটাইম কাজ করতে চান বা অনলাইন এ টাকা আয় করতে চান তাহলে ফ্রিল্যান্সিং আপনাদের জন্য সবথেকে ভালো আর সাথে আপনারা খুব সহজে ছোটখাটো কাজ করে ভালো টাকা আয় করতে পারবেন

যদি আপনারা অনলাইন থেকে টাকা আয় করতে চান তাহলে ফ্রিল্যান্সিং আপনাদের জন্য একটি খুবই ভাল বিকল্প আর যদি আপনারা একজন ব্লগার হতে চান তাহলে ফ্রিল্যান্সিং আপনাদের অবশ্যই করা উচিত

তো বন্ধুরা ফ্রিল্যান্সিং মানে কি এবং কিভাবে শুরু করবেন এই বিষয়ে আপনাদের ভালোভাবে বোঝাতে পেরেছি এই মাধ্যমে আপনারা খুব সহজে ঘরে বসে অনলাইনে কাজ করে টাকা আয় করতে পারবেন

কিন্তু সর্বপ্রথম আপনাদেরকে যে কোন একটি বিষয়ে দক্ষ বা অভিজ্ঞ হতে হবে যেটাতে আপনি এক্সপার্ট এবং যে কাজটি আপনারা সহজেই করে দিতে পারবেন এরপর যদি আপনারা সঠিকভাবে কাজটি করে যান তাহলে আপনারা অবশ্যই একদিন সফল হবেন

তো বন্ধুরা আশা করছি আজকের এই পোস্ট টি পড়ার পর আপনাদের ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে যে সমস্ত প্রশ্ন ছিল তার উত্তর আপনারা পেয়ে গিয়েছেন আশা করছি আজকের এই পোস্ট টি পড়ার পর আপনাদের ভালো লেগেছে যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে এই আর্টিকেলটি কে আপনাদের সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে ভুলবেন না আজকের এই পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাদের অসংখ্য ধন্যবাদ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Scroll to Top
Copy link