কম্পিউটার কি? কম্পিউটারের ইতিহাস এবং প্রকারভেদ সম্পর্কে জানুন সম্পূর্ণ বাংলাতে 2021

কম্পিউটার কি: হ্যালো বন্ধুরা আপনারা কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন বর্তমানে computer আমাদের জীবনের একটি অঙ্গ হয়ে উঠেছে এটি স্কুল থেকে শুরু করে বিভিন্ন অফিসে প্রতিদিন ব্যবহৃত হয় আর প্রতিদিনের কাজ পরিচালনা করার জন্য বাড়িতেও এটির প্রচুর ব্যবহার হচ্ছে

কম্পিউটার কি? কম্পিউটারের ইতিহাস এবং প্রকারভেদ সম্পর্কে জানুন সম্পূর্ণ বাংলাতে

এই জন্য আমাদের সবার উচিত কম্পিউটারের সম্পর্কে ভালোভাবে পরিচিত হয়ে থাকা তবেই আমরা এই ইলেকট্রনিক ডিভাইসটিকে সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারব এছাড়া বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় computer সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের প্রশ্নও জিজ্ঞাসা করা হয় এই কারণে computer সম্পর্কে আমাদের প্রাথমিক জ্ঞান হয়ে থাকা অতি আবশ্যক

তাই আজ আমি আপনাদের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে শুধুমাত্র কম্পিউটার কি এই বিষয়টি ছাড়াও আরও কম্পিউটারের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে যেমন “কম্পিউটারের জনক কে”, “কম্পিউটার এর সম্পূর্ণ নাম কি”, “কম্পিউটারের ইতিহাস”, কম্পিউটার কত প্রকারের হয় এবং কি কি এবং কম্পিউটার বিষয়ক আরও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আজ আমরা বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব 

কম্পিউটার বিষয়ক এই তথ্যগুলি আপনাদের বিভিন্ন কাজে আসবে 

তাহলে চলুন দেরী না করে এই বিষয়ে বিস্তারিতভাবে জেনে নেওয়া যাক

 

কম্পিউটার কি? (What Is Computer In Bangla)

Table of Contents

কম্পিউটার এমন একটি মেশিন যা নির্দিষ্ট নির্দেশাবলী অনুসারে কার্য সম্পাদন করে এটি এমন একটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস যেটি বানানো হয়েছিল তথ্য এর সাথে কাজ করার জন্য কম্পিউটার শব্দটি ল্যাটিন শব্দ “computare” থেকে এসেছে এর অর্থ হল ক্যালকুলেশন করা বা গণনা করা

এটির তিনটি কাজ রয়েছে প্রথমটি হল ডাটা নেওয়া যেটিকে আমরা ইনপুট বলি আর দ্বিতীয় কাজটি হলো সেই ডাটাকে প্রসেসিং করা আর শেষ কাজ হল processed ডাটাকে দেখানো যেটিকে আমরা আউটপুট বলি

Input Data >> Processing >> Output Data

আধুনিক কম্পিউটারের জনক বলা হয় Charles Babbage কে কারণ তিনি সর্বপ্রথম মেকানিক্যাল কম্পিউটার কে ডিজাইন করেছিলেন যেটি Analytical Engine নামে জানা যায় এটিতে Punch Card এর সাহায্যে ডাটাকে insert করা হত

তাই কম্পিউটারকে আমরা এমন একটি অ্যাডভান্স ইলেকট্রনিক ডিভাইস বলতে পারি যা ইউজার দের কাছ থেকে ইনপুট আকারে raw ডাটা নেই তারপর সেই ডাটাকে প্রোগ্রাম এর দ্বারা প্রসেস করে আর শেষে আউটপুট রূপে ফলাফল প্রকাশ করে এটি numerical আর non numerical উভয় ক্যালকুলেশন কে প্রসেস করে

 

কম্পিউটার এর সম্পূর্ণ নাম কি?

প্রযুক্তিগতভাবে কম্পিউটারের কোন সম্পূর্ণ নাম নেই কিন্তু কাল্পনিকভাবে কম্পিউটারের একটি নাম রয়েছে

C – Commonly

O – Operated

M – Machine

P – Particularly

U – Used for

T – Technical

E – Educational

R – Research

“Commonly Operated Machine Particularly Used for Technical and Educational Research”

কম্পিউটারের ইতিহাস কি? জেনারেশন অফ কম্পিউটার বাংলাতে

এটি সঠিক ভাবে যাচাই করা যাবে না যে কবে থেকে কম্পিউটারের বিকাশ শুরু হয়েছিল কিন্তু অফিশিয়াল ভাবে কম্পিউটারের ডেভলপমেন্ট কে বিভিন্ন প্রজন্ম(generation) হিসাবে শ্রেণীভূক্ত(classify) করা হয়েছে এটি মুখ্য ভাবে 5 টি আলাদা আলাদা প্রজন্ম হিসাবে classify করা হয়েছে

কম্পিউটারের বিকাশ বাড়ার সাথে সাথে এগুলিকে সঠিকভাবে এবং সহজ ভাবে বোঝার জন্য বিভিন্ন প্রজন্মের মধ্যে ভাগ করা হয়েছে

কম্পিউটারের প্রথম প্রজন্ম: 1940-1956 “Vacuum Tubes”

প্রথম প্রজন্মের কম্পিউটারে Vacuum tubes কে circuitry আর Magnetic Drum কে memory এর জন্য ব্যবহার করা হতো এই ধরনের কম্পিউটার গুলি আকারে অনেক বড় হতো এবং এই ধরনের কম্পিউটার গুলো রাখার জন্য অনেক বেশি জায়গার প্রয়োজন হতো এছাড়া এই ধরনের কম্পিউটার গুলো চালানোর জন্য প্রচুর শক্তি ব্যবহৃত হতো

এগুলো আকারে অনেক বড় হওয়ার কারণে এগুলো অনেক বেশি তাপ উৎপাদন করতে যার ফলে বহুবার বিভিন্ন ধরনের ত্রুটির(malfunction) কারণ হয়ে দাঁড়াতো প্রথম প্রজন্মের কম্পিউটার গুলিতে শুধুমাত্র Machine Language ব্যবহার করা হতো 

UNIVAC এবং ENIAC হল প্রথম প্রজন্মের কম্পিউটারের উদাহরণ 

কম্পিউটারের দ্বিতীয় প্রজন্ম: 1956-1963 “Transistors”

দ্বিতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার গুলিতে transistors vacuum tubes এর জায়গা নিয়ে নিয়েছিল Transistors খুবই কম স্থান নিত এটি ছোট ছিল, দ্রুত ছিল, সস্তা ছিল এবং আরো অনেক বেশি দক্ষ্য ছিল এগুলি প্রথম প্রজন্মের কম্পিউটার গুলির তুলনায় কম কাপ উৎপন্ন করত তবে এটির উত্তাপের এখনো সমস্যা ছিল

এটিতে High Level programming language যেমন COBOL আর FORTRAN এর ব্যবহার করা হতো

কম্পিউটারের তৃতীয় প্রজন্ম: 1964-1971 “Integrated Circuits”

তৃতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার গুলিতে Integrated Circuit প্রথম ব্যবহৃত হয়েছিল এটিতে Transistors কে ছোট ছোট করে silicon chip এর মধ্যে প্রবেশ করানো হয়েছিল এটিকে Semi Conductor বলা হয় এর ফলে কম্পিউটারের প্রসেসিং করার ক্ষমতা অনেক গুন বেড়ে গিয়েছিল

প্রথমবার এই প্রজন্মের কম্পিউটারগুলিকে user friendly বানানোর জন্য মনিটর, কিবোর্ড আর অপারেটিং সিস্টেম এর ব্যবহার করা হয়েছিল এটিকে প্রথমবারের মতো বাজারে launch করা হয়েছিল

কম্পিউটারের চতুর্থ প্রজন্ম: 1971-1985 “Microprocessors”

চতুর্থ প্রজন্মের কম্পিউটারগুলির বিশেষত্ব হলো যে এটিতে Microprocessor এর ব্যবহার করা হয়েছিল যার সাহায্যে হাজার হাজার Integrated Circuit কে একটি সিলিকন chip এ embedded করা হয়েছিল এতে মেশিনের আকার ছোট করতে পারাটা সম্ভব হয়ে উঠেছিল

Microprocessor এর ব্যবহার করার ফলে কম্পিউটারের দক্ষতা(efficiency) আরো বেড়ে গিয়েছিল এটি খুবই কম সময়ে বড় বড় ক্যালকুলেশন করতে সক্ষম হয়েছিল

কম্পিউটারের পঞ্চম প্রজন্ম: 1985 “Artificial Intelligence”

পঞ্চম প্রজন্ম আজকের সময়ের যেখানে Artificial Intelligence তার আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করেছে বর্তমানে নতুন নতুন টেকনোলজি যেমন Speech recognition, Parallel Processing, Quantum Calculation এর মত অনেক অ্যাডভান্স টেকনোলজি ব্যবহার করা হচ্ছে

এটি এমন একটি প্রজন্ম যেখানে Artificial Intelligence হওয়ার কারণে কম্পিউটারের নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নেওয়ার ক্ষমতা চলে এসেছে ধীরে ধীরে এটির সমস্ত কাজ automated হয়ে যাবে

 

কম্পিউটারের আবিষ্কার কে করেছিলেন?

আধুনিক কম্পিউটারের জনক কে? এমন অনেক মানুষ আছেন যারা এই Computing Field এ অবদান রেখেছিল কিন্তু এদের মধ্যে সবথেকে বেশি অবদান রয়েছে চার্লস ব্যাবেজ(Charles Babage) এর কারণ তিনি প্রথম Alalytical Engine 1837 সালে আবিষ্কার করেছিলেন

এই ইঞ্জিনে ALU, Basic Flow control আর Integrated Memory এর ধারণাটি(concept) বাস্তবায়িত হয়েছিল এই মডেলটির উপর ভিত্তি করেই আজকের কম্পিউটার ডিজাইন করা হয়েছিল এই কারণেই তার অবদান সবথেকে বেশি তাই তিনি কম্পিউটারের জনক নামেও পরিচিত

 

কম্পিউটারের পরিভাষা

যেকোন আধুনিক ডিজিটাল কম্পিউটারের অনেকগুলি উপাদান(components) রয়েছে তবে সেগুলোর মধ্যে কয়েকটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ যেমন Input Device, Output Device, CPU(Central Processing Unit), Mass Storage Device আর Memory

 

কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে?

Input: Input হল সেই স্টেপ যেখানে Raw Information কে Input Device এর মাধ্যমে কম্পিউটারে দেওয়া হয় এটি কোন চিঠি, ছবি বা কোন ভিডিও হতে পারে

Process: Process চলাকালীন input করা ডাটা কে নির্দেশ অনুযায়ী প্রসেসিং করা হয় এটি সম্পূর্ণভাবে অভ্যন্তরীণ(Internal) প্রসেস 

Output: Output চলাকালীন যেটা প্রথমে প্রসেস হয়ে গিয়েছে সেটিকে ফলাফল হিসেবে প্রদর্শিত করা হয় আর যদি আমরা চায় তাহলে এই ফলাফলকে সেভ করে মেমোরিতে রেখে দিতে পারি ভবিষ্যতে ব্যবহার করার জন্য

 

কম্পিউটারের কিছু প্রধান ইউনিট(Unit)

যদি আপনারা কখনো কোন কম্পিউটারের CPU খুলে দেখেন তাহলে আপনারা অবশ্যই দেখে থাকবেন ভিতর অনেক ছোট ছোট উপাদান(components) রয়েছে সেগুলি খুবই জটিল(complicated) দেখায় তবে এগুলি আসলে এত জটিল(complicated) নয় এবার আমি আপনাদের এই উপাদান(components) গুলি সম্পর্কে কিছু তথ্য প্রদান করব

Motherboard

যে কোন কম্পিউটারের প্রধান circuit board কে Motherboard বলা হয় এটি দেখতে পাতলা প্লেটের মত তবে এটি অনেক কিছুই ধারণ করে রাখে যেমন CPU, Memory, Connectors hard drive আর Optical Drive এর জন্য expansio card video এবং audio কে কন্ট্রোল করার জন্য এর সাথে কম্পিউটারের সমস্ত ports কে  কানেকশন করার জন্য একটি মাধ্যম হয়ে দাঁড়ায় Motherboard প্রতিটি parts এর সাথে directly বা in directly সংযুক্ত থাকে

CPU/Processor

আপনারা কি জানেন Central Processing Unit অর্থাৎ CPU কি? এটি কম্পিউটারের case এর মধ্যে Motherboard এ পাওয়া যায় এটিকে কম্পিউটারের মস্তিষ্ক বলা হয় এটি কম্পিউটারের মধ্যে হওয়া সমস্ত ক্রিয়া-কলাপ এর উপর নজর রাখে প্রসেসর এর স্পিড যত বেশি হবে ততো তাড়াতাড়ি প্রসেসিং হবে

RAM

RAM কে আমরা Random Access Memory নামেও জানি এটি সিস্টেমের Short Term Memory কম্পিউটার যখন কোন কিছু ক্যালকুলেশন বা গণনা করে তখন এটি অস্থায়ীভাবে সেই ফলাফল কে RAM এ সেভ করে রাখে যদি কম্পিউটার বন্ধ হয়ে যায় তাহলে সেই ডাটাটিও হারিয়ে যায় যখন আমরা কোনো ডকুমেন্ট লিখি তখন সেটিকে নষ্ট হওয়ার হাত থেকে বাঁচানোর জন্য আমাদের মাঝে মাঝে আমাদের ডাটাকে সেভ করে রাখা উচিত সেভ করার ফলে ডাটা Hard Drive এ সেভ হয়ে থাকে ফলে এটি দীর্ঘ সময় পর্যন্ত রয়ে যায়

RAM কে megabytes(MB) বা gigabytes(GB) তে পরিমাপ করা হয় আপনার কম্পিউটারের RAM যত বেশি হবে তত তাড়াতাড়ি আপনার কম্পিউটারটি কাজ করবে

Hard Drive

Hard Drive হলো এমন একটি উপাদান(component) যেখানে সফটওয়্যার, ডকুমেন্ট আরো অন্যান্য ফাইলকে সেভ করে রাখা হয় এখানে  ডাটা দীর্ঘ সময় পর্যন্ত store হয়ে থাকে

Power Supply Unit

Power Supply Unit এর কাজ হল Main Power Supply থেকে বিদ্যুৎ নেওয়া আর প্রয়োজন অনুসারে অন্যান্য উপাদান(components) গুলিতে সরবরাহ বা supply করা

Expansion Card

সমস্ত কম্পিউটারের Expansion Slots রয়েছে যাতে আমরা ভবিষ্যতে কোন Expansion Card কে add করতে পারি  এগুলিকে PCI(Peripheral Components Interconnect) card বলা হয় কিন্তু বর্তমানের Motherboard এ in build অনেক slots প্রথম থেকেই থাকে কিছু Expansion Card এর নাম যা আমরা পুরানো কম্পিউটারগুলি আপডেট করতে ব্যবহার করতে পারি

  • Video Card
  • Sound Card
  • Network Card
  • Bluetooth Card(Adapter)

Note: যদি আপনারা কখনো computer এর ভিতরের জিনিসকে খুলছেন তাহলে আপনাদের সর্বপ্রথম মূল socket থেকে plug টি খুলে নেওয়া উচিত

 

কম্পিউটারের হার্ডওয়ার আর সফটওয়্যার

কম্পিউটার হার্ডওয়ারকে Physical Device বলতে পারি এটিকে আমরা আমাদের কম্পিউটারে ব্যাবহার করি আর কম্পিউটার সফটওয়্যার এর অর্থ হল codes এর কানেকশন এদিকে আমরা আমাদের মেশিনের Hard Drive এ ইন্সটল করি হার্ডওয়ারকে চালানোর জন্য

উদাহরণস্বরূপ, কম্পিউটারের মনিটর যেটি আমরা পড়ার জন্য ব্যবহার করি, Mouse এটি আমরা navigate করার জন্য ব্যবহার করি এইসব কিছু কম্পিউটার হার্ডওয়ার আর ইন্টারনেট ব্রাউজার যেটিতে আমরা ওয়েবসাইট ভিজিট করি আর অপারেটিং সিস্টেম যেখানে সেই ইন্টারনেট ব্রাউজারটি চালিত হয় এই সমস্ত জিনিসকে আমরা সফটওয়্যার বলি

আমরা এটা বলতে পারি যে কম্পিউটার সফটওয়্যার আর হার্ডওয়ারের একটি সংমিশ্রন, দুটির সমান ভূমিকা রয়েছে, দুটি একসাথে মিলে যে কোন কাজ করতে পারে

 

কম্পিউটার কত প্রকার ও কি কি? (Types Of Computer In Bangla)

আমরা যখনই কম্পিউটার শব্দের ব্যবহার শুনি তখন আমাদের মনে শুধুমাত্র পার্সোনাল কম্পিউটারের ছবি ভেসে ওঠে আমি আপনাদের আগেই বলেদি কম্পিউটার বিভিন্ন প্রকারের হয় এগুলি বিভিন্ন Shapes এবং Size এর হয় আমরা আমাদের প্রয়োজন অনুসারে এগুলির ব্যবহার করি যেমন ATM থেকে টাকা তোলা, Barcode স্ক্যান করতে Scanner, কোন বড় ক্যালকুলেশন করার জন্য ক্যালকুলেটর এগুলি সমস্ত বিভিন্ন ধরনের কম্পিউটার

১. Desktop

অনেক মানুষ তাদের বাড়ি, স্কুল এবং তাদের ব্যক্তিগত কাজের জন্য Desktop কম্পিউটার ব্যবহার করে এগুলি এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে আমরা এগুলি আমাদের ডেক্সে রাখতে পারি এটির অনেকগুলো parts রয়েছে যেমন Monitor, Keyboard, Mouse, কম্পিউটার case

২. Laptop

ব্যাটারি চালিত ল্যাপটপ গুলি সম্পর্কে আপনারা অবশ্যই জানেন এগুলি খুবই portable তাই এগুলি যেকোনো জায়গায় এবং যেকোনো সময় নিয়ে যাওয়া যেতে পারে

Laptop গুলি Desktop এর তুলনায় অনেক ছোট হয়

ল্যাপটপে Keyboard এবং screen সব একই সাথে সংযুক্ত থাকে এছাড়া power এর জন্য আপনারা এগুলিতে ব্যাটারির ব্যবহার করতে পারেন এর ফলে আপনারা বিদ্যুতের সংযোগ ছাড়াই যেকোনো জায়গায় ল্যাপটপ ব্যবহার করতে পারবেন

৩. Tablet

এবার আমরা কথা বলবো Tablet এর সম্বন্ধে এটিকে আমরা Handheld কম্পিউটার বলতে পারি কারণ এটিকে খুব সহজেই হাতে ধরা যায়

এটিতে কোন Keyboard আর Mouse নেই শুধুমাত্র একটি touch sensitive স্ক্রীন থাকে যেটি typing আর navigation করার জন্য ব্যবহার করা হয় উদাহরণস্বরূপ – iPAD

৪. Servers

একটি সার্ভার এমন এক ধরনের কম্পিউটার যেটি বিভিন্ন ধরনের ডাটা অন্যান্য কম্পিউটারের জন্য উপলব্ধ করে উদাহরণস্বরূপ, যখন আমরা ইন্টারনেটে কোনো কিছু সার্চ করি তখন আমরা যে সমস্ত সমাধান হিসেবে তথ্য খুঁজে পায় সেই সমস্ত তথ্য বা ডাটা Server এর মধ্যে store থাকে

 

অন্যান্য প্রকারের কম্পিউটার

চলুন এবার অন্যান্য প্রকারের কম্পিউটার সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক

১. স্মার্টফোন (Smartphone)

যখন কোন সাধারণ সেল ফোনে ইন্টারনেট enable হয়ে যায় তখন সেটির ব্যবহার করে আমরা অনেক কাজ করতে পারি এই ধরনের সেল ফোন কে স্মার্টফোন বলা হয়

২. Game Console

এই Game Console একটি বিশেষ ধরনের কম্পিউটার এটি আপনারা টিভিতে ভিডিও গেম খেলার জন্য ব্যবহার করা হয়

৩. TV

টিভি হলো এক ধরনের কম্পিউটার বর্তমানে প্রতিটি টিভিতে একটি অপারেটিং সিস্টেম থাকে এর ফলে আপনারা আপনাদের টিভিতে মোবাইল এর মতন বিভিন্ন এপ্লিকেশন ইন্সটল করে ব্যবহার করতে পারবেন

বর্তমানে আপনারা আপনাদের টিভিতে ইন্টারনেটের সাহায্যে ভিডিও স্ট্রিম করতে পারবেন 

 

কম্পিউটারের ভবিষ্যৎ

যাইহোক দিনে দিনে কম্পিউটারে অনেক Technological পরিবর্তন হচ্ছে প্রতিদিন এটি আরও সস্তা এবং আরো কার্যকর এবং আরও দক্ষ হয়ে উঠছে মানুষের চাহিদা যত বাড়বে ততো এটিতে আরো পরিবর্তন আসবে আগে এটি একটি বাড়ির আকারের মত ছিল আর এখন এটি আমাদের হাতে চলে এসেছে

এমন একটা সময় আসবে যখন এটি আমাদের মন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবে আজকাল বিজ্ঞানীরা Optical computer, DNA computer, Neural computer আর Quantum computer এর ওপর বেশি রিসার্চ করছে এটির পাশাপাশি Artificial Intelligence এর ওপর অনেক বেশি মনোযোগ দেয়া হচ্ছে যাতে এটি নিজের কাজ সুচারুভাবে করতে পারে

YouTube video

আমার শেষ কথা

এবার আপনারা কম্পিউটার সম্পর্কে সম্পূর্ণ ভাবে পরিচিত হয়ে গিয়েছেন আমি আন্তরিক ভাবে আশা করছি যে কম্পিউটার কি এবং কম্পিউটারের প্রকার সম্পর্কে আমি আপনাদের সম্পূর্ণ তথ্য প্রদান করতে পেরেছি এবং আশা করছি যে আপনারা এই কম্পিউটার প্রযুক্তি সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন

এবার আপনারা সহজেই কম্পিউটার কাকে বলে এর উত্তর নির্দ্বিধায় দিতে পারবেন আমি আমার সমস্ত পাঠক ভাইদের অনুরোধ করছি আপনারা এই তথ্যটি আপনাদের আত্মীয়স্বজন এবং বন্ধু বান্ধব দের মধ্যে অবশ্যই শেয়ার করবেন যাতে আমাদের মধ্যে সচেতনতা বাড়ে এবং আমাদের সবারই উপকারে আসে আমার আপনাদের সমর্থনের প্রয়োজন রয়েছে যাতে আমি আপনাদের কাছে এই ধরণের আরো নতুন নতুন তথ্য পৌঁছে দিতে পারি 

আমি সর্বদা চেষ্টা করেছি আমার সমস্ত পাঠক ভাইদের সম্পূর্ণ ভাবে সাহায্য করতে যদি আপনাদের কারো কোন সমস্যা থেকে থাকে তাহলে আপনারা নির্দ্বিধায় আমাকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন আমি আপনাদের সাহায্য করার যথাযথ চেষ্টা করব

তো বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলটি কম্পিউটার কি পড়ার পর আপনাদের কেমন লেগেছে তা আপনারা অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন আর যদি আপনাদের এই আর্টিকেলটি সম্বন্ধিত কোন ধরনের প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে আপনারা নিচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাবেন আমি আপনাদের উত্তর দেওয়ার যথাযথ চেষ্টা করব আশা করছি আজকের এই আর্টিকেলটি কম্পিউটার কি পড়ার পর আপনাদের কম্পিউটার সম্পর্কিত সমস্ত ধরনের প্রশ্নের উত্তর পেয়ে গিয়েছেন

বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ার জন্য আপনাদের অসংখ্য ধন্যবাদ

2 thoughts on “কম্পিউটার কি? কম্পিউটারের ইতিহাস এবং প্রকারভেদ সম্পর্কে জানুন সম্পূর্ণ বাংলাতে 2021”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top